• আজ- সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২:৫৮ পূর্বাহ্ন
Logo

৭০ অনুচ্ছেদ সরকারকে স্থিতিশীলতা দেয়: সংসদে প্রধানমন্ত্রী

লেখক : / ৬৯ বার দেখা হয়েছে
আপডেট : মঙ্গলবার, ১১ এপ্রিল, ২০২৩

add 1

প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেত্রী শেখ হাসিনা সংবিধানের ৭০ অনুচ্ছেদ সরকার ও দেশের উন্নয়নে স্থিতিশীলতা দেয়া সত্ত্বেও কতিপয় সংসদ সদস্য অনুচ্ছেদটির বিরোধিতা করায় তিনি তাদের কঠোর সমালোচনা করেছেন। তিনি বলেন, অনুচ্ছেদ ৭০ গণতন্ত্রকে সুরক্ষা দেয় ও জনগণের কাছে গণতন্ত্রের সুফল পৌঁছে দেয়ার জন্য এটিকে আরও শক্তিশালী করে। কিন্তু, আমাদের (সংসদ) সদস্যদের মধ্যে কয়েকজন এই অনুচ্ছেদের বিরুদ্ধে। কারণ, এই অনুচ্ছেদের জন্য তারা ইচ্ছেমতো সরকার ভাঙা-গড়ার খেলা খেলতে পারছেন না। গতকাল সোমবার স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদের সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে একাদশ জাতীয় সংসদের ২২তম (বিশেষ) অধিবেশনে সমাপনী ভাষণ প্রদানকালে তিনি একথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রধানত সংসদ সদস্যদের ফ্লোর ক্রসিংয়ের কারণে ১৯৪৬ এবং ১৯৫৪ সালের নির্বাচনের পর গঠিত সরকারগুলোকে উৎখাত করার কথা উল্লেখ করে, তাদের অনভিজ্ঞতার কারণে কয়েকজন সংসদ সদস্য সংবিধানের ৭০ অনুচ্ছেদ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করছেন। তিনি আরো বলেন, সংবিধানের ৭০ অনুচ্ছেদ নিয়ে অনেকেই উদ্বেগ প্রকাশ করছেন। যারা এটা করছেন তাদের অভিজ্ঞতার অভাব থাকতে পারে। ৭০ অনুচ্ছেদ আমাদের দেশে সরকারকে স্থিতিশীলতার সুযোগ দিয়েছে- যে কারণে দেশ উন্নয়নের সাক্ষী হয়েছে। বিরোধী দলীয় উপনেতা গোলাম মোহাম্মদ কাদের তার বক্তৃতায় সংবিধানের ৭০ অনুচ্ছেদ বাতিলের কথা বলেন। এসময় বাংলাদেশের গণতন্ত্র ও মানবাধিকার নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের বক্তব্যের তীব্র সমালোচনা করেন প্রধানমন্ত্রী। বারবার আবেদন করার পরও বঙ্গবন্ধুর খুনি রাশেদ চৌধুরীকে যুক্তরাষ্ট্র লালন-পালন করছে বলে অভিযোগ করেন তিনি। শেখ হাসিনা বলেন, গণতন্ত্র না উন্নয়ন-এ কথা আসতে পারে না। কেননা আমাদের অভিজ্ঞতা খুব বিচিত্র। আমরা আইয়ুবের আমল, ইয়াহিয়ার আমল, জিয়ার আমল, জেনারেল এরশাদের আমল, খালেদা জিয়ার আমলও দেখেছি। আমি যখন আমেরিকায় প্রথম বার যাই তখন আমেরিকার স্টেট ডিপার্টমেন্টের আন্ডার সেক্রেটারির সঙ্গে আমার মিটিং হয়েছিল। আমি তাকে একটা কথাই বলেছিলাম যে, আমরা একটা মনুমেন্ট দেখে আসলাম সেখানে লেখা আছে-গর্ভরমেন্ট অব দ্য পিপল, বাই দ্য পিপল, ফর দ্য পিপল। আর আমি একটা দেশ থেকে এসেছি, সে দেশটা হচ্ছে গর্ভরমেন্ট অব দ্য আর্মি, বাই দ্য আর্মি, ফর দ্য জেনারেল। আমেরিকা তাদের গণতন্ত্র চর্চা করে তাদের ওই আটলান্টিকের পাড় পর্যন্ত। এটা যখন পার হয়ে যায় তাহলে কি আপনাদের গণতন্ত্রের চর্চা বদলে যায়? কেন আপনারা একটা মিলিটারি ডিক্টেটরকে সমর্থন দিচ্ছেন, আমি এই প্রশ্ন করেছিলাম। আজকে আমি বলি, যে দেশটা আমাদের কথায় কথায় গণতন্ত্রের ছবক দেয় আর আমাদের বিরোধী দল থেকে শুরু কিছুকিছু লোক তাদের কথায় খুব নাচন-কোঁদন করছেন, উঠ-বস করছেন, উৎফুল্ল হচ্ছেন। হ্যাঁ, তারা যেকোনো দেশের ক্ষমতা উল্টাতে পারে, পাল্টাতে পারে, বিশেষ করে মুসলিম দেশগুলিতো আরও বেশি কঠিন অবস্থার মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। অ্যারাবিক স্প্রিং, ডেমোক্রেসি এসব কথা বলে বলে যে সমন্ত ঘটনা ঘটাতে ঘটাতে এখন নিজেরাই নিজের প্রতি একটা প্যাঁচে পড়ে গেছে। শেখ হাসিনা আরও বলেন, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের পর আজ সারা বিশ্বই অর্থনৈতিক মন্দায় পড়ে গেছে, এটাই হচ্ছে বাস্তবতা। গণতন্ত্র নিয়ে যারা আমাদের এত জ্ঞান দিচ্ছে, কথায় কথায় ডেমোক্রেসি আর হিউম্যান রাইটসের কথা বলে, তাদের দেশের অবস্থাটা কী। কয়েক দিন আগের কথা, টেনিসিস রাজ্যে তিনজন কংগ্রেস সদস্য, একজন উইম্যান; একজন হচ্ছেন জাস্টিস জোন, জাস্টিস পিয়ারসন আরেকজন হচ্ছেন গ্লোরিয়া জনসন-এই তিনজন। আমেরিকায় আপনারা জানেন যে, প্রায় প্রতিদিনই দেখা যায় অস্ত্র নিয়ে স্কুলে ঢুকে যাচ্ছে, বাচ্চাদের গুলি করে হত্যা করছে, শিক্ষকদের হত্যা করছে, শপিংমলে ঢুকে হত্যা করছে, ক্লাবে যাচ্ছে সেখানে হত্যা করছে। এটা তো প্রতিদিনের ব্যাপার, কোনো না কোনো রাজ্যে অনবরত ঘটনা ঘটছে। এই তিনজনের অপরাধ হলো, তারা অস্ত্র নিয়ন্ত্রণের জন্য আবেদন করেছিলেন, এইভাবে যার তার হাতে অস্ত্র থাকা এবং এইভাবে গুলি করে শিশু হত্যা বন্ধ করতে হবে। এটা ছিল তাদের অপরাধ আর এই অপরাধে জাস্টিস জোন এবং জাস্টিস পিয়ারসনকে তাদের কংগ্রেস থেকে বহিষ্কার করা হয়। একজন সাদা চামড়া ছিল বলে বেঁচে যায়। যেহেতু এই দুজন কালো চামড়া, তাদের অপরাধ হলো তারা কালো চামড়া। সেই জন্যই তাদের সিট আন সিট হয়ে যায়। বঙ্গবন্ধুর খুনি রাশেদকে ফেরত না দেওয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এইখানে মানবাধিকার কোথায়, এখানে গণতন্ত্র কোথায় এটা আমার প্রশ্ন। এমনকি বঙ্গবন্ধুকে যারা হত্যা করেছে সেই খুনি রাশেদ আমেরিকায় আশ্রয় নিয়ে আছে। প্রতিটি সরকার, যত প্রেসিডেন্ট আসে সবার আছে আমি আবদেন করেছি, আইনগতভাবে আমরা প্রচেষ্টা চালিয়েছি, ডিপ্লোমেসির মাধ্যমে প্রচেষ্টা চালিয়েছি, রাষ্ট্রপতির কাছে আবেদন করেছি যে, এই খুনি সাজাপ্রাপ্ত আসামিকে আপনারা আশ্রয় দেবেন না। শিশু হত্যাকারী, নারী হত্যাকারী, রাষ্ট্রপতির হত্যাকারী, মন্ত্রী হত্যাকারী, এরা মানবতা লঙ্ঘনকারী এদের আপনারা আশ্রয় দিয়েন না, ফেরত দেন। কই তারা তো তাকে ফেরত দিচ্ছে না, এই খুনিদের লালন-পালন করেই রেখে দিচ্ছে। দুর্নীতির বিরুদ্ধে কথা বলে আর এখন দেখা যায়, দুর্নীতিতে সাজাপ্রাপ্ত তাদের পক্ষ হয়েই তারা ওকালতি করে যাচ্ছে। গণতন্ত্রকে বাদ দিয়ে এখানে এমন একটা সরকার আনতে চাচ্ছে, যার গণতান্ত্রিক কোনো অস্তিত্বই থাকবে না। অগণতান্ত্রিক ধারা এবং সেই ক্ষেত্রে আমাদের কিছু বুদ্ধিজীবী বুদ্ধি বেচে জীবিকা নির্বাহ করে, তারা সামান্য কিছু পয়সার লোভে এদের তাবেদারি করে, পদলেহন করে। শেখ হাসিনা বলেন, প্রথম আলো আওয়ামী লীগের শত্রু, গণতন্ত্রের শত্রু, দেশের মানুষের শত্রু। তিনি বলেন, একটি শিশুর মুখ দিয়ে মিথ্যা বলানো, ভাত-মাংসের স্বাধীনতা চাই। একটি সাত বছরের শিশুকে দিয়ে বলানো, তার হাতে ১০টা টাকা তুলে দেওয়া এবং তার কথা রেকর্ড করে সেটি প্রচার করা স্বনামধন্য এক পত্রিকার নাম প্রথম আলো। কিন্তু বাস করে অন্ধকারে। প্রথম আলো আওয়ামী লীগের শত্রু, গণতন্ত্রের শত্রু, প্রথম আলো দেশের মানুষের শত্রু। তিনি বলেন, আমি এটা অত্যন্ত দুঃখের সঙ্গে বলি যে, এরা এদেশে কখনো স্থিতিশীলতা থাকতে দিতে চায় না। ২০০৭ সালে যখন ইমার্জেন্সি হয় তখন তারা উৎফুল্ল। দুটি পত্রিকা আদা-জল খেয়ে নেমে গেলো। তার সঙ্গে আছে একজন সুদখোর (ড. মুহাম্মদ ইউনূস)। তিনি বলেন, যে বিনিয়োগ করেন আমেরিকায়। আমেরিকা একবারও জিজ্ঞেস করে না যে গ্রামীণ ব্যাংক, এটা তো একটি সংবিধিবদ্ধ প্রতিষ্ঠান। সরকারের বেতন তুলতো যে এমডি। সে মিলিয়ন মিলিয়ন ডলার কোথা থেকে পেলো, যে আমেরিকার মতো জায়গায় সামাজিক ব্যবসা করে, বিনিয়োগ করে। দেশে-বিদেশে করা এই বিনিয়োগের অর্থ কোথা থেকে আসে? এটা কি তাকে কখনো জিজ্ঞেস করেছে? জিজ্ঞেস করেনি। তাদের কাছ থেকে দুর্নীতির কথা শুনতে হয়। এদের কাছে মানবতার কথা শুনতে হয়। যারা গরিবের রক্ত চোষা, যারা গরিবের টাকা পাচার করে শত কোটি টাকার মালিক হয়ে আবার আন্তর্জাতিক পুরস্কারও পেয়ে যায়, আর এসব লোক এদেশের গণতন্ত্রকে ধ্বংস করার চেষ্টা করে, মানুষের ভাগ্য নিয়ে ছিনিমিনি খেলে। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার এসে কিছুই নাকি করেনি। এ সময় তিনি আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে এবং বিএনপির আমলে কী কী উন্নয়ন হয়েছে তার তুলনামূলক চিত্র বর্ণনা করেন। এর আগে সংসদের কার্যপ্রণালী বিধির ১৪৭ ধারায় প্রধানমন্ত্রীর ৭ এপ্রিল গৃহীত একটি রেজুলেশনের ভিত্তিতে সংসদে বিশেষ আলোচনা হয়। রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ সংসদে দেশের অর্জন তুলে ধরে স্মারক ভাষণ দেন।

add 1


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

অন্যান্য লেখা সমূহ

আজকের দিন-তারিখ

  • সোমবার (রাত ১২:৫৮)
  • ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪
  • ১৫ শাবান, ১৪৪৫
  • ১৩ ফাল্গুন, ১৪৩০ (বসন্তকাল)
Raytahost Facebook Sharing Powered By : Sundarban IT